Monday, June 24, 2024
Homeদক্ষিণবঙ্গChandipur Incident : তদন্তে সহযোগিতা করার শর্তে ৫ হাজার টাকার ব্যক্তিগত বন্ডে...

Chandipur Incident : তদন্তে সহযোগিতা করার শর্তে ৫ হাজার টাকার ব্যক্তিগত বন্ডে জামিন পেলেন শুভেন্দুর কনভয়ের চালক !

spot_img
spot_img
- Advertisement -

তমলুক, পূর্ব মেদিনীপুর : জামিন পেলেন শুভেন্দু অধিকারীর কনভয়ের গাড়ির চালক আনন্দ কুমার পান্ডে। শনিবার তমলুক জেলা দায়রা আদালতের বিচারক আনন্দর জামিন মঞ্জুর করেছেন। তাঁকে তদন্তে সব রকম সহযোগিতা করতে হবে বলেও নির্দেশে জানিয়েছেন (Chandipur Incident)। আগামী ৭ জুন মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য হয়েছে বলে অভিযুক্ত পক্ষের আইনজীবি কল্লোল দাস জানিয়েছেন। গত বৃহস্পতিবার রাত্রি প্রায় ১০টা নাগাদ দিঘা নন্দকুমার জাতীয় সড়কের চন্ডীপুরে শুভেন্দুর কনভয়ের এই গাড়ির ধাক্কায় ভৈরবপুরের বাসিন্দা সেক ইসরাফিলের মৃত্যু হয়েছিল।

সেই ঘটনার জেরে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ায় এলাকায়। ঘটনার দিন রাতভর অভিযুক্ত চালকের গ্রেফতারের দাবীতে দিঘা সড়ক অবরুদ্ধ করে আন্দোলন করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। এরপরেই শুক্রবার শুভেন্দুর গাড়ির চালক আনন্দ কুমার পান্ডে তমলুক থানায় ঘাতক গাড়ি সঙ্গে নিয়ে আত্মসমর্পণ করেন। ধৃতের বিরুদ্ধে একাধিক ধারায় মামলা দায়ের করে পুলিশ। শুক্রবার অভিযুক্ত চালককে ১ দিনের পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারপতি। শনিবার পুনরায় তাঁকে আদালতে নিয়ে গেলে ধৃত চালকের জামিন মঞ্জুর করা হয়।  

আসামী পক্ষ্যের আইনজীবি কল্লোল দাস জানান, “অনাকে সেকশান ৪৫ ক্রিমিনাল প্রসিডিওরে আমরা জানিয়েছি, অন ডিউটি পুলিশ কর্মী বা সেন্ট্রাল ফোর্স বা আর্মড ফোর্স-এর কোনও জওয়ানকে যদি গ্রেফতার করতে হয় তাহলে তার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো প্রয়োজন। কিন্তু সেই প্রসিডিওর মানা হয়নি। এই কারনেই আমরা চালক আনন্দ কুমার পান্ডের জামিনের পক্ষ্যে শওয়াল করলাম। তমলুক জেলা দায়রা আদালতের বিচারক আমাদের আবেদন মঞ্জুর করেছেন ব্যক্তিগত ৫ হাজার টাকার বন্ডে। তদন্তে সব রকম সহযোগিতা করতে হবে এই মর্মে জামিন মিলেছে। আগামী দিনে ট্রায়াল চলবে, আমরা তদন্তে সব রকম সহযোগিতা করব।

স্থানীয় সূত্রে খবর বৃহস্পতিবার রাত ১০টা নাগাদ চণ্ডীপুর পেট্রল পাম্পের কাছে রাস্তা পারাপার করার সময় সেক ইসরাফিলকে ধাক্কা মারে দ্রুতগতির একটি গাড়ি। প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি, সেই সময়েই শুভেন্দুর কনভয়ের গাড়ির ধাক্কায় ওই যুবকের মৃত্যু হয়েছে। অভিযোগ, কনভয়টি প্রচণ্ড গতিতে যুবককে ধাক্কা মারার পর ঘটনাস্থলে আর দাঁড়ায়নি। দুর্ঘটনার পরেই সেখান থেকে চলে গিয়েছে কনভয়। গুরুতর জখম অবস্থায় ইসরাফিলকে এড়াশাল গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকেরা তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। এই ঘটনার পরেই দিঘাগামী ১১৬বি জাতীয় সড়ক অবরোধ করেন এলাকাবাসীরা।

তবে শুভেন্দু অধিকারীর আইনজীবি অনির্বাণ চক্রবর্তীর দাবী, “দুর্ঘটনার আগেই শুভেন্দু অধিকারীর কনভয় ঘটনাস্থল ছেড়ে চলে যায়। তিনি ওই ঘটনা সম্পর্কে কিছুই জানতেন না। শুভেন্দু;’র কনভয়ের প্রায় আড়াই কিমি দূরে ছিল চেয়ার কার। এবং তারও অনেকটা পেছনে ছিল রাজ্য পুলিশের গাড়ি। সেই গাড়ি থেকেই রাস্তার পাশে একজনকে আহত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে চন্ডীপুর থানায় খবর দেওয়া হয়। তবে এই ঘটনার সঙ্গে শুভেন্দু অধিকারীর কোনও সম্পর্ক নেই। অযথা ঘটনাটিকে নিয়ে বিতর্ক করা হচ্ছে”।

- Advertisement -

নিয়মিত খবরে থাকতে আমাদের সোশ্যাল সাইটে যুক্ত হয়ে যান

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments