Tuesday, May 21, 2024
HomeNational Newsনতুন সংসদ ভবনে অজন্তা-ইলোরার ধাঁচে ‘ফ্রেসকো ম্যুরাল পেইন্টিং’, মহিষাদলের শিল্পীর জাদু দেখবে...

নতুন সংসদ ভবনে অজন্তা-ইলোরার ধাঁচে ‘ফ্রেসকো ম্যুরাল পেইন্টিং’, মহিষাদলের শিল্পীর জাদু দেখবে গোটা বিশ্ব !

- Advertisement -

নিউজবাংলা : বাংলা ও বাঙালির ছোঁয়ায় সেজে উঠছে দিল্লীর নতুন সংসদ ভবন। যার দেওয়াল জুড়ে ছড়িয়ে থাকছে মূল্যবান ছবি। এছাড়াও ত্রিকোণাকৃতি নতুন সংসদ ভবনে সাধারণের প্রবেশের তিন দরজাতেও থাকছে নানান ঐতিহ্যবাহী শিল্পকলার ছোঁয়া। আর এই শিল্পকলার স্রষ্টা হলেন জনপ্রিয় এক বাঙালী শিল্পী। পূর্ব মেদিনীপুর জেলার ছোট্ট শহর মহিষাদল থেকে উঠে আসা শিল্পী গৌরমোহন পাহাড়ি’র হাতে অজন্তা-ইলোরার ধাঁচে তৈরি ‘ফ্রেসকো ম্যুরাল পেইন্টিং’-এর সৌজন্যে গোটা বিশ্ববাসীর কাছে উজ্জ্বল থাকবে বাঙালীর এই মহান শিল্পকলা।

খড়্গপুর আইআইটি’র আর্কিটেক্ট কমিউনিকেশনের প্রাক্তন শিক্ষক গৌরমোহন। তাঁর হাতেই তৈরি কলকাতার টাউন হল মিউজিয়াম, রাষ্ট্রপতি ভবনের সংগ্রহশালা। সেই কাজে খুশি হয়ে সংস্কৃতি মন্ত্রক দিয়েছে নতুন দায়িত্ব। আর তাই নতুন সংসদ ভবনেও বাংলা আর বাঙালির ছোঁয়া থাকবে অমলিন।

কি থাকছে সংসদ ভবনের শিল্পকলার অন্দরে?

২৩১ পাতার সংবিধানের পরতে পরতে ছড়িয়ে থাকা আর এক প্রখ্যাত বাঙালী শিল্পী নন্দলাল বসুর আঁকা ২২টি ছবিই এবার সংবিধানের পাতা থেকে উঠে আসছে নতুন সংসদ ভবনের দেওয়ালে। রাম-লক্ষ্মণ-সীতা, হনুমান, বুদ্ধদেব, মহাবীর, শিবাজি, নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর মতো ছবি এবং নকশায় সেজে উঠবে সংসদ ভবনের দেওয়াল।

এছাড়াও ত্রিকোণাকৃতি নতুন সংসদ ভবনে সাধারণের প্রবেশের তিন দরজাতেও থাকছে বাংলার এই শিল্পীর কাজ। সেগুলির নাম জ্ঞান, কর্ম এবং শক্তি দ্বার। প্রথম দ্বারটির দু’পাশে থাকবে জ্ঞানের প্রতীক গার্গী এবং নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয়। কর্ম দ্বারে সর্দার প্যাটেল ও বি আর আম্বেদকরের মুখ আর শক্তি দ্বারে চাণক্য এবং গান্ধীজির লবণ সত্যাগ্রহ। একটি দেওয়ালে স্থান হবে কোনারকের চাকার। সবই পিতলের। সর্দার প্যাটেলের ‘একতা’ এবং আম্বেদকরের ‘হাম ভারত কে লোগ’— বাংলা সহ ২২টি এই উক্তি দিয়েই গড়ে উঠছে দু’জনের মুখের আদল।

আর এই কাজের জন্য দেড় হাজার কিমি উজিয়ে সুদূর কলকাতার কুমোরটুলি থেকে আনা হচ্ছে প্রায় ৮০ কেজি খড়ি, অ্যালা, গিরি মাটির মতো আর্থ কালার। সঙ্গে তেঁতুল বীজের গুঁড়ো থেকে তৈরি আঠা। প্রায় ৪০০ কেজি মিহি দানার বালি তোলা হয়েছে রূপনারায়ণ নদ থেকে। এসেছে প্রায় ৭০ কেজি ঝিনুকের গুঁড়ো থেকে তৈরি চুনও।

মহিষাদলের রাজ হাইস্কুল থেকে পড়াশোনা শিল্পী গৌরমোহনের। এরপর কলকাতার আর্ট কলেজে পড়াশোনা। এরপর দীর্ঘদিন কলকাতায় টলিপাড়ায় ইন্টেরিয়ারের কাজ। বাংলা সিনেমায় ইন্ডোরের নানান কারুকার্য করেছেন দাপিয়ে। এরপর ধীরে ধীরে উত্তরণ শুরু হয় তাঁর। বর্তমানে দিল্লীতেই তাঁর বসবাস। নয়ডায় নিজের বিশাল স্টুডিয়োয় এই মুহূর্তে জোরকদমে চলছে ‘সংবিধান গ্যালারি’র দেওয়ালের জন্য ফ্রেসকোর কাজ। দিনরাত তাতে মজে রয়েছেন গৌরমোহন এবং তাঁর সঙ্গী নীলকমল আদক, দাউদ ইকবালরা।

কিছু মুহূর্ত, গৌর মোহন পাহাড়ি’র ফেসবুক থেকে সংগৃহীত

- Advertisement -
RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments