Saturday, July 20, 2024
HomeKolkataআগামীর ভবিষ্যৎ কি রাম-বাম জোট ? খেজুরিতে শুভেন্দুর বাম স্তুতি, ‘অশুভ’ জোটে...

আগামীর ভবিষ্যৎ কি রাম-বাম জোট ? খেজুরিতে শুভেন্দুর বাম স্তুতি, ‘অশুভ’ জোটে তৃণমূলের আতংক, এ কোন ভবিষ্যতের ইঙ্গিত !

spot_img
spot_img
- Advertisement -

নিউজবাংলা : আগামী দিনে রাজ্যে তৃণমূলের বিকল্প কি রাম বাম জোট ? সম্প্রতি রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দুর অধিকারীর জেলা পূর্ব মেদিনীপুরে থেকেই যার উৎপত্তি। একাধিক সমবায় নির্বাচনে তৃণমূলের বিরুদ্ধে এই “অশুভ” জোটের লড়াই কি আসলে কোনও পরীক্ষা নিরীক্ষার অঙ্গ। ইতিমধ্যে যে জোটের প্রশংসা করে বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ প্রকাশ্যে সওয়াল করেছেন। বৃহস্পতিবার খেজুরিতে ‘হার্মাদ দিবসের মঞ্চে’ বিজেপির জনসভায় দাঁড়িয়ে শুভেন্দুর বাম স্তুতি জন্ম দিচ্ছে অনেক প্রশ্নের।

এদিন শুভেন্দু স্পষ্ট করেই জানান, “সেদিনের হার্মাদদের দলে অনেকেই  ভালো মানুষও ছিলেন। বামপন্থী নেতা সুকুমার সেনগুপ্ত, নন্দীগ্রামের প্রাক্তন বাম বিধায়ক ভুপাল পান্ডারা পরম শ্রদ্ধেয় মানুষ”। এরই পাশাপাশি শুভেন্দুর উক্তি, “হার্মাদ যাদের বলা হত তারা  যতটা না খারাপ ছিল আজকের তৃণমূলের ‘হালি’ নেতারা হার্মাদের ডক্টরেট করেছে। এদের গেঁড়ু ধরে টেনে তুলতে হবে” বলে আওয়াজ তোলেন শুভেন্দু।

বামেদের বিরুদ্ধে শুভেন্দুর এহেন নরম মনোভাব ইতিমধ্যেই ঝড় তুলেছে রাজনৈতিক মহলে। বিজেপির একাংশ বর্ষীয়ান নেতা বাম সঙ্গ এখনও মেনে নিতে পারেননি ঠিকই তবে তৃণমূলের নেতারা যে এই জোটকে বিলক্ষণ ভয় পাচ্ছেন এতে কোনও সন্দেহ নেই। গত কয়েক বছরের ভোটের পরিসংখ্যান দেখলে স্পষ্ট বোঝা যায় রাজ্যে বিজেপির ভোটবাক্স সমৃদ্ধ হয়েছে বাম ভোটারদের অবদানেই। কিন্তু এখনও কিছু গোঁড়া বামপন্থী নিজেদের অস্তিত্ব বাঁচিয়ে রাখতে মরিয়া।

আর এই সুযোগকে কাজে লাগাতে পুরোদস্তুর মাঠে নেমে পড়েছে তৃণমূল। ভোট ভাগাভাগির অংকে রাম-বাম-কংগ্রেস আলাদা থাকলে আখেরে তৃণমূলেরই লাভ। এই কারণে বামেদের সঙ্গে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখেও তাঁদের নেতাদের প্রতি অনেকটাই সদয় তৃণমূলের ওপর তলার নেতৃত্বরা। পূর্ব মেদিনীপুর জেলা তৃণমূলের প্রথম সারির এক নেতা রাম-বাম জোটকে অশুভ শক্তি আখ্যা দিয়ে জানান, বিজেপি একক শক্তিতে লড়াই চালালে ত্রিস্তর পঞ্চায়েতের কোথাও সেভাবে দাঁড়াতে পারবে না। তবে এরা জোট গড়লে তা তৃণমূলের কাছে যথেষ্ট চাপের হবেই।

তৃণমূলের তমলুক সাংগঠনিক জেলার সভাপতি সৌমেন মহাপাত্র জানিয়েছেন, “রাম বাম জোট সব জায়গায় বিশেষ কাজ করবে না। তবে এই ‘অশুভ’ জোট হলে তা সাধারণ মানুষের জন্য ক্ষতির কারণ হবে। ধর্মের নামে ভোট চাওয়া বিজেপি সঙ্গ উদার নীতিতে বিশ্বাসী বামেদের নৈতিকতাকে নষ্ট করে দেবে। বামেদের থেকে সাধারণ মানুষের ভরসাও চলে যাবে। তাই এমন জোট হওয়া বাঞ্ছনীয় নয়”।

বিজেপির বর্ষীয়ান নেতারা বামেদের থেকে দূরত্ব বাড়াতে চাইলেও শুভেন্দুর মতো নব্য নেতারা বিলক্ষণ বুঝেছেন এই রাজ্যে তৃণমূলের বিরুদ্ধে শক্ত লড়াই করতে একজোট হওয়া অত্যন্ত জরুরি। দিলীপ ঘোষ যেখানে রাম বাম জোটের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে প্রতিবাদ জানিয়েছেন সেখানে শুভেন্দুর জেলাতেই একের পর সমবায় ভোটে প্রকাশ্যে জোট গড়ছে দুই বৃহৎ শক্তি।

ইতিমধ্যে নন্দকুমারের সমবায়ের নির্বাচনে তৃণমূলকে শূন্য হাতে ফিরিয়ে এই জোট যথেষ্ট প্রশংসা কুড়িয়েছে গোটা রাজ্যের। এরপর মহিষাদলের সমবায়ে এই জোট ধাক্কা খেলেও তমলুকের সমবায় নির্বাচনে আবারও জোট গড়ে লড়াইয়ে নেমেছে রাম ও বাম নেতারা। এবারের ভোটে জোট নীতি সফল হলে গোটা রাজ্য জুড়ে বিরোধী শিবিরের নীচুতলার কর্মীরা এই মডেলে ভোটে লড়ার দাবী তুলবে সন্দেহ নাই।

- Advertisement -

নিয়মিত খবরে থাকতে আমাদের সোশ্যাল সাইটে যুক্ত হয়ে যান

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments