Tuesday, May 21, 2024
HomeNational Newsনন্দীগ্রামে রাষ্ট্রপতিকে কুরুচিকর মন্তব্য অখিলের, দেশ জুড়ে নিন্দার ঝড় উঠতেই পাল্টা মন্তব্য...

নন্দীগ্রামে রাষ্ট্রপতিকে কুরুচিকর মন্তব্য অখিলের, দেশ জুড়ে নিন্দার ঝড় উঠতেই পাল্টা মন্তব্য “আমি অনুতপ্ত” !

- Advertisement -

নিউজবাংলা (NewzBangla) : দেশের রাষ্ট্রপতি দৌপদী মুর্মু’কে উদ্দেশ্য করে কুরুচিকর মন্তব্য করার অভিযোগ উঠল রাজ্যের স্বাধীন দায়িত্বপ্রাপ্ত কারামন্ত্রী অখিল গিরি। শুক্রবার নন্দীগ্রামের গোকুলনগরে বিজেপি বিরোধী জনসভায় ভাষণ দিতে গিয়ে রাষ্ট্রপতিকে কটাক্ষ করে বসেন অখিল। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে গোটা দেশ জুড়েই নিন্দার ঝড় বইতে শুরু করেছে। বিজেপির তরফে ট্যুইট করে ঘটনার কড়া নিন্দা করা হয়েছে।

তবে এরপরেই গোটা ঘটনা নিয়ে মুখ খুলেছেন অখিল গিরি। তাঁর দাবী, “আমি শুভেন্দু অধিকারীর কটাক্ষের জবাব দিতে গিয়েই এমন মন্তব্য করেছি”। অখিলের দাবী, “আমি এই মন্তব্য ক্রোধের বশে বলেছি। এতে যদি কেউ রাষ্ট্রপতিকে অসম্মান করেছে বলে মনে করে তাহলে আমি অনুতপ্ত”। তবে এই ঘটনার জন্য তিনি ক্ষমা চাইতে রাজি নয় বলেই স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন। অখিল জানান, “আমি অনুতপ্ত, তবে ক্ষমাপ্রার্থী নই”।

কি বলেছিলেন অখিল?

নন্দীগ্রামের গোকুলনগরের করপল্লীতে দলের জনসভায় দাঁড়িয়ে শুভেন্দু’র “হাফপ্যান্ট মন্ত্রী’ কটাক্ষের জবাব দিতে দিতে আচমকাই অখিলের মন্তব্য, “ওরা বলে আমি দেখতে ভালো নয়। ওরা রূপসী, দেখতে ভীষণ ভালো। আমরা রূপের বিচার করিনা। আমি চেয়ারকে সম্মান করি। বলি রাষ্ট্রপতিকে কেমন দেখতে বাবা?” অখিলের এই মন্তব্যকে কেন্দ্র করেই ব্যাপক শোরগোল পড়ে গিয়েচে দেশজুড়ে। একজন উপজাতি সম্প্রদায়ের মহিলা রাষ্ট্রপতির চেহারা নিয়ে মন্তব্য করার ঘটনা নজিরবিহীন বলেই মনে করছে তথ্যভিজ্ঞ মহল।

এই ঘটনাকে হাতিয়ার করেই বেঙ্গল বিজেপির ট্যুইটারে দাবী, ”মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং টিএমসি আদিবাসী বিরোধী”। ট্যুইটে আরও লেখা হয়েছে, “রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মু, আদিবাসী সম্প্রদায়ের। অখিল গিরি, সংশোধনাগারের মন্ত্রী। তাঁর সঙ্গে টিএসসি মহিলা কল্যাণ দপ্তরের আরেক মন্ত্রী শশী পাঁজা’র উপস্থিতিতে মহিলা রাষ্ট্রপতি সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্য করেছেন”।

শুনুন অখিল গিরির বক্তব্য :

তবে বিতর্কিত মন্তব্য নিয়ে অখিলের দাবী, “আমাকে প্রতিনিয়ত হাফপ্যান্ট মন্ত্রী, দেখতে কাকের মত বলে বিজেপি নেতৃত্বরা সহ রাজ্যের বিরোধী দলনেতা। এটা নিয়ে আমার ক্রোধ তৈরি হয়েছিল। আমি ক্রোধের বশে শুভেন্দুকে কটাক্ষ করেই এমনটা বলেছি”। অখিলের যুক্তি, “আমি রাষ্ট্রপতিকে শ্রদ্ধা করি ও তাঁর চেয়ারকেও সম্মান করি। আমি সংবিধানের লোক, উনিও সংবিধানের প্রধান। তাই ওনাকে উদ্দেশ্য করে কিছু বলিনি”।

অখিলের সংযোজন, “আমার কথায় কেউ যদি অসম্মানিত হয়, কেউ যদি আমার কথা নিয়ে রাষ্ট্রপতির অসম্মান হয়েছে বলে মনে করে তারজন্য আমি অনুতপ্ত। এবং আমি এটা ক্রোধের বশে আমার মুখ থেকে বেরিয়েছে”। তবে এই ঘটনার জন্য কোনও ভাবেই ক্ষমাপ্রার্থী বলে মানতে রাজি নয় অখিল। তাঁর উক্তি, “আমি অনুতপ্ত, তবে ক্ষমাপ্রার্থী বলছি না”।

বিজেপির ট্যুইট :

 

- Advertisement -
RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments