Monday, June 24, 2024
HomeLoksabha Election 2024Nandigram Agitation : অগ্নিগর্ভ নন্দীগ্রাম, গভীর রাতে সশস্ত্র দুষ্কৃতীদের হামলায় বিজেপির মহিলা...

Nandigram Agitation : অগ্নিগর্ভ নন্দীগ্রাম, গভীর রাতে সশস্ত্র দুষ্কৃতীদের হামলায় বিজেপির মহিলা কর্মী খুন, জখম একাধিক !

spot_img
spot_img
- Advertisement -

নিউজবাংলা ডেস্ক : বিধানসভা ভোট পরবর্তী হিংসার রেশ এখনও তরতাজা। তারই মাঝে লোকসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আবারও নতুন করে উত্তপ্ত হয়ে উঠল নন্দীগ্রাম। শুভেন্দু অধিকারীর গড় নন্দীগ্রামে বুধবার গভীর রাতে সশস্ত্র বাইক বাহিনীর (Nandigram Agitation) হামলায় বিজেপির এক মহিলা কর্মীর মৃত্যু হয়েছে বলে খবর। গোটা ঘটনা ঘিরে নতুন করে উত্তেজনায় ফুটছে একদা জমি আন্দোলনের ধাত্রীভূমি।

মৃত মহিলা সোনাচূড়ার বাসিন্দা রথিবালা আড়ি। এছাড়াও তাঁর ছেলে সঞ্জয় আড়ির অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাঁকে কলকাতায় স্থানান্তরিত করা হয়েছে। জখম আরও ৭ জনের চিকিৎসা চলছে নন্দীগ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে। গোটা ঘটনার তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল তুলেছে বিজেপি। সেই সঙ্গে এই নৃশংস হামলার প্রতিবাদে নন্দীগ্রাম জুড়ে প্রতিবাদ মিছিল শুরু করেছে বিজেপি নেতৃত্বরা। যদিও এখনও পর্যন্ত এই হামলার ঘটনায় জড়িত দুষ্কৃতীরা অধরা বলেই পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ভোট প্রচারের শেষ লগ্নে সোনাচূড়ার মনসাপুকুর বাজার এলাকায় রাত পাহারা দিচ্ছিলেন বিজেপির কর্মী সমর্থকরা। সেই সময়ই রাত্রি প্রায় ২টো নাগাদ একদল সশস্ত্র বাইক বাহিনী ওই বিজেপি কর্মীদের ওপর চড়াও হয়। ধারালো অস্ত্রের এলোপাথাড়ি আঘাতে রথিবালা আড়ি নামের মহিলা বিজেপি কর্মী রক্তাক্ত হয়ে রাস্তায় লুটিয়ে পড়েন। মা’কে বাঁচাতে গিয়ে গুরুতর জখম হয় ছেলেও। এছাড়াও আরও বেশ কয়েকজন বিজেপি কর্মী ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আহত হয় বলে দাবী বিজেপির।

এই ঘটনার খবর পেয়েই এলাকাবাসীরা ছুটে এলে দুষ্কৃতীরা এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। গ্রামবাসীরা জখম রথীবালা সহ অন্যদের দ্রুত নন্দীগ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা মহিলাকে মৃত বলে জানান। সেই সঙ্গে রথীবালার ছেলের অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে কলকাতায় স্থানান্তরিত করা হয়েছে। এছাড়াও জখম আরও প্রায় ৭ জন বিজেপি কর্মীকে নন্দীগ্রাম হাসপাতালেই চিকিৎসা করা হয়েছে বলে খবর। এই ঘটনার পরে ব্যাপক উত্তেজনার পারদ চড়েছে গোটা এলাকায়।

নন্দীগ্রামের বিজেপি নেতা মেঘনাদ পাল জানান, “তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা ভোটের মুখে এলাকাকে সন্ত্রস্ত করতে গিয়ে এই হামলা চালিয়েছে”। তাঁর অভিযোগ, “বুধবারই নন্দীগ্রামে সভা করতে এসেছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বঁটি নিয়ে হামলার পরামর্শ দিয়েছিলেন। তাঁর সভার কয়েক ঘন্টার মধ্যেই বিজেপি কর্মীদের ওপর যেভাবে ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা চালানো হয়েছে তা নক্কারজনক ঘটনা। এই হামলায় জড়িতদের কঠোর শাস্তির দাবী জানাচ্ছি”। যদিও বিষয়টি নিয়ে এই মুহূর্তে মুখে কুলুপ এঁটেছেন তৃণমূল নেতৃত্বরা। তবে তৃণমূলের স্থানীয় নেতা কর্মীরা গোটা ঘটনাকে বিজেপির অন্তরদ্বন্দ্ব বলেই দায় সেরেছে।

- Advertisement -

নিয়মিত খবরে থাকতে আমাদের সোশ্যাল সাইটে যুক্ত হয়ে যান

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments